জীবনের অন্য পৃষ্ঠা\\কামদেব

বাংলা সেক্স গল্প,Bānlā sēksa galpa,যৌন গল্প,Yauna galpa,Chudai galpa,প্রাপ্তবয়স্ক গল্প,Prāptabaẏaska galpa,লিঙ্গ,Liṅga
User avatar
kamdevbaba
Novice User
Posts: 83
Joined: 16 Oct 2014 16:54

Re: জীবনের অন্য পৃষ্ঠা\\কামদেব

Post by kamdevbaba » 24 Sep 2016 00:08


[৫৬]



মাস খানেক পরের কথা।শুভর বিয়ে হয়ে গেছে,হনিমুনে যাবার জন্য কাছাকাছি দার্জিলিং ঠিক হয়েছে।সোমলতার বিয়ে হলেও সে ডা.শরদিন্দু ব্যানার্জির কাছে ফিরে এসেছে।ওর স্বামী এফআরসিএস করতে বিলেত গেছে।কিছুদিন পর সোমলতাও যাবে তার তোড়জোড় চলছে।একটা দুঃখ জনক খবর মিসেস মুখার্জি অসুস্থ হয়ে নার্সিং হোমে ভর্তি হয়েছিলেন, খবর পেয়ে পলি মলি এসেছিল।কিন্তু এসে মাকে জীবিত দেখতে পারেনি।সৎকার করে আবার এ্যামেরিকায় ফিরে গেছে।পারমিতার বিয়েও ঠিক বিয়ের পর তাকে মুম্বাই যেতে হবে।পাত্র মুম্বাই নিবাসী।খুশবন্ত দার্জিলিং-এ এসপির দায়িত্ব নিয়েছে,আম্মীকে নিজের কাছে নিয়ে এসেছে।মুন্নির পেটে বাচ্চা আছে জেনে বিয়ের ব্যাপারটা নিয়ে তিনি বেশি ঘাটাঘাটি করেননি।রতিকে নিজের ছেলের মত মেনে নিয়েছেন,কেননা তার নিজের কোনো ছেলে নেই।
এখন পাড়ায় গরম খবর বঙ্কিম. সর্বত্র গুজ গুজ ফুস ফুস।বিষয়টা চ্যারিটি দপ্তরে এসেছে।উমানাথকে সমস্ত ব্যাপার বঙ্কিম খুলে বললেও উমানাথ চিন্তিত।বয়স্কদের কিভাবে বোঝাবে।সুলতা গোজ হয়েছিল,প্রথমে কিছুই বলতে চায়নি।কিন্তু দাদাদের হম্বিতম্বিতে চেপে রাখা সম্ভব হয়নি।মেজদা তিমির নরম প্রকৃতি সমীরের মত গোয়ার নয়।সে তো পারলে বঙ্কা শালাকে খুন করে।সুলতা বলল,তোমরা আমাকে মারো, বকুকে কিছু বলবে না।
তিমির বলল,সমু মাথা গরম করিস না,এখন মাথা গরম করার সময় না।
--তুমি বলছো কি মেজদা?মাথা গরম করব না?
--দেখ একহাতে তালি বাজে না।তিমির বলল।
--মেজদা আমি ভালবাসি,--।সুলতা বলল।
--চুপ কর।ভালবাসলে এই সব করতে হবে?কিছু করেনা বেকার ছেলে--।
--ও চেষ্টা করছে,কিছু একটা ব্যবস্থা হবেই।
--কি ব্যবস্থা হবে?হতচ্ছাড়ি বংশে কালি দিয়ে দিল।আমার শ্বশুরবাড়ীতে কি করে মুখ দেখাবো--? বড়দি মমতা খিচিয়ে ওঠে।
সুলতার বড় বোন মমতা।বিয়ের পর কলকাতায় থাকে।খবর পেয়ে ছুটে এসেছে।
--আঃ মমতা উত্তেজিত হলে হবে।চ্যারিটিতে খবর দিয়েছি।দেখা যাক ওরা কি করে?অনেক বিচক্ষন লোক আছেন মানুষ আছেন চ্যারিটিতে।মা কি করছে?তিমির বোনকে থামায়।
--কি করবে,কাদছে।মার কথা বলিস না মেজদা।এতকাণ্ডের পর বলছে ওর সঙ্গেই বিয়ে দিতে।
--ছোড়দি তুই আর কথা বলিস না,ভেবেছিস জানিনা কিছুই?সুলতা ফুসে উঠল।
সমীর ঠাষ করে এক চড় বসিয়ে দিল।তিমির বলল,কি হচ্ছে কি এতবড় মেয়ের গায়ে কেউ হাত তোলে?
সুলতা ককিয়ে উঠল,মেরে ফেল আমাকে মেরে ফেলো।মেজদা ঐ গুণ্ডাটাকে বলো আমাকে মেরে ফেলতে।
মমতা আর কথা বলেনা।বিয়ের আগে ঐটা ছাড়া দিব্যেন্দু কিইনা করেছে।ব্যাটা বেইমান, ব্যাঙ্গালোরে যাবার আগে বলেছিল ফিরে এসে ফয়সালা করবে।ব্যাঙ্গালোর থেকে ফিরে বাপ-মায়ের ঠিক করা পাত্রীকে বিয়ে করে বউ নিয়ে ব্যাঙ্গালোর চলে গেল।রাগে দুঃখে ভেবেছিল আত্মহত্যা করবে।মেজদা ছিল বলে সবদিক ভালোয় ভালোয় মিটে গেল।
সুবোধ ব্যাঙ্কে চাকরি করে।মমতাকে খুব ভালবাসে,ওর মাই যা দজ্জাল।কদিন আর বাচবে বুড়ি, চুপ করে সহ্য করে যায়।তবে নাতি অন্তপ্রাণ।
খুশবন্ত বেরিয়ে গেলে একমনে লিখতে থাকে রত্নাকর।দলজিৎ চা দিয়ে জামাইয়ের পাশে বসেন।বাংলা বুঝলেও পড়তে পারেন না,বড় আফশোস।রতির গায়ে মাথায় হাত বুলিয়ে বললেন,চা পিও পুত্তর।
রতি একটু মমতার স্পর্শ পেলে আবেগ প্রবণ হয়ে পড়ে।কলম রেখে দলজিতের হাত চেপে নিজের গালে বুলায়।দলজিতের খুব ভাল লাগে ওর মুখে আম্মী ডাক শুনতে।
অফিস থেকে ফিরে একে একে জড়ো হয়।চ্যারিটির অফিস জমজামাট।সুলতার মেজদা তিমির এবং বঙ্কার মামা সুরেনবাবুও এসেছেন।সকলকে অবাক করে উপস্থিত হয়েছেন ডাক্তারবাবু।সভা শুরু হতেই প্রচণ্ড বাদ-প্রতিবাদ পারস্পরিক দোষারোপ।হাল ধরলেন, অবসর প্রাপ্ত বিচারক আর এন চৌধুরী।দুজনেই ছেলে মানুষ নয় প্রাপ্ত বয়স্ক এবং যা করার নিজ নিজ সম্মতিতে করেছে।আইনের চোখে অপরাধ বলতে পারিনা।তিমির বলল,স্যার আপনি ঠিক বলেছেন কিন্তু ছেলেটি বেকার নিজের কোনো সংস্থান নেই বউকে কি খাওয়াবে?আপনারা কি বলেন বোনকে জেনেশুনে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেব?
জাস্টিস চৌধুরি হেসে বললেন,ভাই আপনি আবেগ প্রবন হয়ে পড়েছেন।আপনার মনের অবস্থা বুঝি।ছেলেটি বেকার গ্রাজুয়েট,এখন কিছু না করলেও না খেয়ে নেই।আজ বেকার কাল কোন কাজ করবে না এটা যুক্তি হিসেবে মেনে নেওয়া যায় না।তিমিরের মনে হল বিয়েটা মেনে নেওয়াই ভাল।তাছাড়া না মেনে উপায় কি?মোটামুটি সভা যখন শেষ হতে চলেছে গোল পাকালেন সুরেনবাবু।উঠে দাঁড়িয়ে বললেন, ভগ্নীপতি মারা যাবার পর দিদির দায় তার উপর বর্তেছে।ভগ্নীপতির পেনশন ছাড়া সংসারে দিদির কিছু দেবার সামর্থ্য নেই।কিন্তু নিজের দিদিকে তো ফেলে দিতে পারেন না কিন্তু আরেকটা মেয়ের দায়িত্ব তিনি নিতে পারবেন না,সাফকথা।
সভায় গুঞ্জন শুরু হল কেউ সুরেনবাবুর উপর বিরক্ত আবার কেউ বলল,ঠিকই আজকালকার বাজারে উনি আরেকটা সংসার কিভাবে প্রতিপালন করবেন।ওর নিজেরও সংসার আছে।সবাইকে থামিয়ে ড শরদিন্দু ব্যানার্জি উঠলেন।তিনি একটু ভেবে বললেন, আমি মেয়েটিকে চিনি না কিন্তু বঙ্কিম পাড়ার ছেলে ভদ্র নম্র, মানুষের সুখে দুখে পাশে দাড়াতে দেখেছি।আজকাল চাকরি পাওয়া সহজ ব্যাপার নয়।জাস্টিস চৌধুরির সঙ্গে একমত আজ না হোক কাল পাবে।শুনলাম মেয়েটির যা অবস্থা কবে চাকরি পাবে তার জন্য বসে থাকা যায় না।
কে একজন বলল,একমাস।বেলা চৌধুরি ধমক দিল,চ্যাংড়ামী হচ্ছে?
আমি একটা প্রস্তাব দিচ্ছি,আমার কম্পাউডার আছে যদি বঙ্কিম রাজি থাকে তাহলে যতদিন চাকরি না হয় কম্পাউডারের সহযোগী হিসেবে কাজ করতে পারে।
উমানাথ বলল,ডাক্তারবাবু বঙ্কিম রাজী আছে।
ডাক্তারবাবুর কানে একটা কথা যেতে উনি বললেন,আমার যিনি কম্পাউণ্ডার তার দুটি বাচ্চা আছে তিনি যা পান তাতেই সংসার চলে যায়।প্রকাশ্যে বলব না কত পায়।
জাস্টিস চোউধুরী বললেন,ডাক্তার আমার এবং সভার পক্ষ হতে আপনাকে অভিনন্দন। মেয়ে কবে যাচ্ছে?
--ভিসা পেলেই চলে যাবে।
বাইরে বেরিয়েই হিমেশ ধরল,এই বঙ্কা চা খাওয়াতে হবে।
বঙ্কিমের মন ছটফট করছে সুলতার জন্য।বেচারি কত কষ্ট পাচ্ছে কে জানে।এখন বাড়ির বাইরে বেরোয় না।সবাই চায়ের দোকানে গেল,উমানাথ বেলাবৌদির সঙ্গে কি কথা বলছে বলল,তোরা যা আমি আসছি।
সুদীপ বলল,ব্যাস গেটপাস হয়ে গেল বঙ্কা এবার সরাসরি বাড়ীতে গিয়ে দেখা কর।
ভোরবেলা উঠে জিমঘরে কিছুক্ষন কসরৎ করা খুশবন্তের দৈনিক রুটিন।ঘেমে নেয়ে বেরিয়ে রতিকে না দেখে কান্তাকে জিজ্ঞেস করে,সাহেব কোথায়?
--সাহেব বড়ি মেমসাবের সঙ্গে বেরিয়েছে।কান্তা বলল।
খুশবন্ত বিরক্ত হয়ে ঘরে গেল।কান্তা ছেত্রী স্থানীয় মেয়ে বাংলোয় কাজ করে।আম্মি আসার আগে ভয়ে ভয়ে ছিল।রতিকে মেনে না নিলে কি করবে এই ছিল দুশ্চিন্তা।এখন নতুন সমস্যা,রাতে শোবার আগে ছাড়া রতিকে পায়না।আম্মি সারাক্ষন পুত্তরকে নিয়ে পড়ে আছে।নেহাৎ আম্মীর বয়স হয়েছে পায়ে বাতের জন্য খুড়িয়ে হাটে না হলে আম্মীকেই সন্দেহ করত।খুশবন্ত কথাটা ভেবে নিজেই হেসে ফেলল।কান্তা লেম্বুপানি দিয়ে গেল।কিছুক্ষন পর রতির গলা জড়িয়ে ধরে আম্মী এল।
খুশবন্ত জিজ্ঞেস করল,আম্মী কোথায় গেছিলে?
--সুবা সাম হাটাহাটি করলে সেহত কে লিয়ে আচ্ছা।
--ওর লেখালিখি করতে হয়--।
রতি বলল,না না তুমি চিন্তা কোর না--।
--তুমি চুপ করো,তোমাকে কিছু জিজ্ঞেস করেছি?
--মুন্নি তুই এভাবে কথা বলছিস কেন?দলজিৎ মেয়েকে বকলেন।
খুশবন্ত ঘর থেকে বেরিয়ে রান্না ঘরে গেল।কান্তা চা বানাচ্ছে।রতি রান্না ঘরে গিয়ে বলল, মুন্নি আম্মীর কোনো দোষ নেই--।
--ভাগো হিয়াসে।
রত্নাকর বুঝতে পারে মুন্নির মেজাজ ঠাণ্ডা না হলে কথা বলা যাবে না।বেরিয়ে নিজের ঘরে লিখতে বসল।টেবিলের র‍্যাকে তার প্রকাশিত "যে কথা বলা হয়নি"-র পাঁচ কপি বই।দ্বিতীয় সংস্করণ বের হচ্ছে।"নবজন্ম" লেখা শেষ কিন্তু মুন্নি পড়ে বলেছে এখন ছাপার দরকার নেই।পাহাড়ের পটভুমিতে নতুন উপন্যাস শুরু করেছে।মুন্নি চা নিয়ে ঢুকল,টেবিলে রেখে দাঁড়িয়ে থাকে।
--তুমি বেরোবে না?রতি জিজ্ঞেস করল।
একটা চেয়ের টেনে হেসে বলল,বেরোলেই বুড়িয়ার সঙ্গে আড্ডা শুরু করবে।
--আম্মি আমাকে খুব ভালবাসে।মায়ের স্নেহ বাঙালী পাঞ্জাবী আলাদা করে বোঝা যায় না।
--আমার থেকে বুড়ীকে বেশি ভাল লাগে?
--মুন্নি আর ইউ ম্যাড?তুমি কি বলছো তুমি জানো?
রত্নাকর ভাবে মেয়েরা মেয়েদের ঈর্ষা করে তাই বলে মাকে?ধ্বন্দ্বে পড়ে যায়।ভারী চেহারা বৃদ্ধা মহিলা একটু খুড়িয়ে হাটেন,তার কাধে ভর দিয়ে সকাল সন্ধ্যে একটু হাটতে বেরোন।
--সকালে বেরোবার আগে একটু সময় পাই সন্ধ্যে বেলা বাসায় ফিরে দেখি তুমি নেই।ভাল লাগে একা একা?
--একা কেন,কান্তা থাকে তো।
--ও.কে, থাকো তুমি আম্মীকে নিয়ে।খুশবন্ত বেরিয়ে গেল।
এখানে পাহাড়ী রাস্তা খুশবন্ত নিজে গাড়ী চালায়না,ড্রাইভার বাহাদুর শিং আছে।বডি গার্ড মোহন ছেত্রী সব সময়ের সঙ্গী।বেরোবার আগে খুশবন্ত এসে রতির মাথা ধরে চুমু খেল।এটা তার নিয়মিত অভ্যাস।রতি বুঝতে পারে মুন্নির রাগ পড়েছে।
উশ্রী কদিন ধরে বলছে চলো না কোথাও ঘুরে আসি।উমানাথ বুঝতে পারে শুভ যাচ্ছে শোনার পর থেকেই নতুন বায়না শুরু হয়েছে।দাদা-বৌদিকে রেখে বউ নিয়ে বেড়াতে যাবার কথা ভাবতে পারেনা উমানাথ। মনীষা বলল,যাও না ঠাকুর-পো,কোনোদিন তো কোথাও যাওনি।
--তাহলে চলো সবাই মিলে।
--বাড়ী ফাকা রেখে?তোমার সঙ্গে যাবো কেন?গেলে আমি আর তোমার দাদা অন্য কেউ নয়।
দিদির বলার ভঙ্গী শুনে খিল খিল করে হেসে উঠল উশ্রী।উমানাথ বলল,কিন্তু শুভ যাচ্ছে এই সময়ে কি--।
--শুভ যাচ্ছে তো কি,দার্জিলিং কি এইটুকু জায়গা?যাও রতির সঙ্গে দেখা হবে,কত ভালবাসত তোমায়।
রতির কথা শুনে উমানাথ দুর্বল হয়।সেদিন ভাল করে কথা বলা হয়নি।বলল,দেখি টিকিটের কিছু করা যায় কিনা?
--তোমার বসকে বোলো,উনি তো শুনেছি পর্যটন দপ্তরে আছেন।মনীষা মনে করিয়ে দিল।
উমানাথের মনে হল অফিস থেকে বাড়িতে গেলে বিষয়টা আরো গুরুত্ব পাবে।যেই ভাবা সেই কাজ।উমানাথ ঠিকানা খুজে সাহেবের বাড়িতে হাজির হল।বাড়ীতেই ছিলেন,দেখেই চিনতে পারলেন।সব কথা বলতে উনি বললেন সব ব্যবস্থা হয়ে যাবে।হোটেলে উঠতে হবেনা পর্যটন দপ্তরের বাংলোয় ব্যবস্থা করে দেবেন।জিজ্ঞেস করলেন,আচ্ছা ঘোষ আপনার সেই বন্ধু স্যাণ্ডিকে পড়াতো উনি নাকি এখন লেখক?
--অনেকদিন ধরেই লেখে।এবারের পুজো সংখ্যায় ওর একটা উপন্যাস ছাপা হয়েছে।
রতির বিয়ে হয়ে গেছে বলতে গিয়েও বলল না।
শুভ রোজিকে নিয়ে চলে গেছে।বঙ্কাকে আর চায়ের দোকানে দেখা যায়না, ডাক্তার বাবুর চেম্বারেই বেশি সময় কাটে।লাইনের ধারে ঘর ভাড়া নিয়েছে।সুলতা সেখানেই থাকে,তিমির একদিন গেছিল বাড়ীর আর কেউ যোগাযোগ রাখেনা।
রাগিনী বসে আছে তার নিজের অফিস চারতলায়।আম্মাজী তার খাস কামরায় ধ্যানে বসেছেন,কিছুক্ষন পরেই সাক্ষাৎপ্রার্থীরা আসবে।কৃষ্ণকলি চারতলায় উঠে এসেছে।রাগিনীকে জিজ্ঞেস করে,আচ্ছা আনন্দকে দেখছিনা উনি আসেন না?
রাগিনী সন্দিগ্ধ চোখ তুলে কৃষ্ণকলিকে দেখে জিজ্ঞেস করে,আপনি কোন কলেজে আছেন?
--কে আমি?একটা অন্য কলেজের নাম বলল কৃষ্ণকলি।
--দেখুন সোসাইটি ঠীক করে দেবে কাকে কার সঙ্গে দেওয়া হবে।কারো পছন্দমত দেওয়া হয়না।
কৃষ্ণকলি হতাশ হয়।আগে বাস স্ট্যাণ্ডে আনন্দর সঙ্গে মাঝে মধ্যে দেখা হতো,বহুকাল দেখা হয়না।কলেজের সঙ্গে যুক্ত কিছু করতে গেলে অনেক ভেবেচিন্তে করতে হয়।পুজোর কটাদিন কীভাবে যে কেটেছে বলার মত নয়।আবার বিয়ে করবে কিনা চিন্তাটা মাথায় ঘুর ঘুর করে।কোথাও বেড়াতে যাবে ভেবেছিল কিন্তু একা একা ভাল লাগেনা।
উমানাথ ফিরতে উশ্রী খবরটা শুনে খুশী,টিকিটের ব্যবস্থা হয়ে গেছে,গোছগাছ শুরু করে দিয়েছে।মাঝে আর একটা রাত।দিদির জন্য ভাল কিছু একটা কিনে আনবে, নন্টূর জন্যও।মনীষা বলল,শীতের পোশাক নিতে ভুলোনা।




User avatar
kamdevbaba
Novice User
Posts: 83
Joined: 16 Oct 2014 16:54

Re: জীবনের অন্য পৃষ্ঠা\\কামদেব

Post by kamdevbaba » 24 Sep 2016 00:09

কাহিনী শেষ প্রান্তে,এবার বিদায় নেবার সময় হয়ে এল।সবাইকে আসন্ন পুজোর শুভেচ্ছা জানালেম।

User avatar
kamdevbaba
Novice User
Posts: 83
Joined: 16 Oct 2014 16:54

Re: জীবনের অন্য পৃষ্ঠা\\কামদেব

Post by kamdevbaba » 24 Sep 2016 15:12

[উপসংহার]


খবর ছিল,নেপাল সীমান্ত দিয়ে ঢুকতে পারে।সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে পড়েছে।স্থানীয় থানায় খবর দিয়েছে।বাহাদুরকে বাদ দিলে মোহন ছেত্রী সহ তারা ছ'জন।হঠাৎ নজরে পড়ে চার-পাঁচজনের একটা ছোটো দল পাহাড়ের ঢাল বেয়ে নেমে আসছে।তাদের দেখতে পেয়ে উল্টোদিকে হাটতে থাকে।কনস্টেবলরা ধেয়ে যায় ওরাও গতি বাড়ায়।খুশবন্তের অভিজ্ঞতা আছে ফাদে পড়লে এরা রিটালিয়েট করতে পারে।সেইমত সে অন্যদিক দিয়ে ওদের ঘিরে ফেলার চেষ্টা করে।যা ভেবেছিল তাই ওরা গুলি চালাতে শুরু করল।কিন্তু পিছন দিক থেকে গুলি আসবে ভাবতে পারেনি।একজনের গুলি লেগেছে,ধরা পড়ে চারজন।কতজন ছিল জানা যায়নি।কয়েককোটি টাকার চরস কিছু আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া গেল।একজন কনস্টেবলের পায়ে গুলি লেগেছে।ইতিমধ্যে ওসি দলবল সহ হাজির।
কনস্টেবল আর চোরাচালানকারীদের একজনকে হাসপাতালে পাঠাবার ব্যবস্থা করে থানার হাতে দায়িত্ব দিয়ে কালিম্পং-র পথ ধরল খুশবন্ত।ওসি সদানন্দ অবাক হয়ে খুশবন্তকে দেখে,এ কেয়া আউরত হ্যায়?দ্রুত জীপে উঠে জীপকে অনুসরন করেন।
মোহন ছেত্রী বলল,স্যার আকেলা ঐভাবে যাওয়া ঠিক হয়নাই।
খুশবন্ত হেসে বলল,আকেলা আয়া আকেলাই যানে হোগা।
--ওহ ত সহি বাত।
পাহাড়ী পথে জীপ ছুটে চলেছে।রতির মুখটা মনে পড়ল।মুন্নির জন্য বড় চিন্তা ওর।
আলো কমে এসেছে।
সন্ধ্যে হবার মুখে রত্নাকর লেখা থামিয়ে ভাবল আম্মী তো এলনা?রোজ হাটতে যায় আজ কি হল?
আম্মীর ঘরে উকি দিয়ে দেখল বিছানায় শুয়ে আছেন।রতি জিজ্ঞেস করে,আম্মি শুয়ে আছেন?
দলজিৎ পাশ ফিরে হাটু দেখিয়ে বলল,পুত্তর বহুৎ দর্দ হোতা--।
--ম্যাসাজ করে দেবো?ভাল লাগবে।
দলজিৎ হাসলেন।রতি একটা লুঙ্গি এগিয়ে দিয়ে বলল,পায়জামাটা খুলে ফেলুন।
--কান্তা কো বলো।দলজিৎ বললেন।
রত্নাকর বুঝতে পারে আম্মী একা পারবেন না।কান্তা কে পাঠিয়ে দিয়ে বলল,আম্মীকে দিয়ে এসে একটু রসুন তেল গরম করে দিও।
--জি সাব।কান্তা বড়ি মেমসাবের ঘরে গেল।
কান্তা ফিরে এসে তেল গরম করে।রতি ঘরে ঢূকে দেখল আম্মী লুঙ্গি পরে পা ঝুলিয়ে বসে কাতরাচ্ছেন।রতি নীচু হয়ে পা-টা ধরে বিছানায় তুলে দিয়ে বলল,পা ঝুলিয়ে বসবেন না।
এত যন্ত্রণার মধ্যেও দলজিতের মন জুড়িয়ে যায়।জিজ্ঞেস করেন,পুত্তর তুই আমাকে বহুৎ পেয়ার করিস?
--কেন করব না,আপনি আমার মা না?
দলজিৎ হেসে বললেন,জরুর পুত্তর।
কান্তা তেলের বাটি নিয়ে এল,রতি হাত থেকে তেলের বাটি নিয়ে পরীক্ষা করে উষ্ণতা।
কান্তা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখে সাহেবের কাজ।তেল হাত দিয়ে পরীক্ষা করে দলজিতের যে পায়ে যন্ত্রনা সেটা কোলে রেখে লুঙ্গি হাটু পর্যন্ত তুলে তেল নিয়ে মালাইচাকিতে লাগিয়ে ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করতে লাগল।প্রথমে একটু "আহা-উহু" করলেও ধীরে ধীরে দলজিতের বেশ আরাম হতে থাকে।
কালিম্পং-এ জীপ থামিয়ে অর্কিড হাউসে ঢূকল খুশবন্ত।পছন্দ মত টব সমেত একটা গাছ কিনে পয়সা দিতে গিয়ে গোলমাল।কিছুতেই পয়সা নেবে না,খুশবন্ত পয়সা ছাড়া গাছ নেবে না।মোহন ছেত্রী বোঝাতে শেষে বাধ্য হয়ে পয়সা নিল। বাংলোর কাছে আসতে খুশবন্তের মন খারাপ হয়।মোহন ছেত্রী বলল,স্যার পেপারঅলা বাতচিত করতে চায়।
বিরক্ত হয়ে খুশবন্ত বলল,সদানন্দকে কথা বলতে বলুন।
পিছন পিছন ওসি এসেছিল,খুশী হয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে রোমাঞ্চকর অভিযান সম্পর্কে আলোচনা করতে থাকে।
খুশবন্ত ঘরে ঢুকে দেখল যা ভেবেছিল তাই,বাড়ী ফাকা।নিজের ঘরে গিয়ে চেঞ্জ করল।
কান্তাও নেই নাকি?দুবার কান্তা কান্তা বলতেই দরজায় দেখা গেল চা নিয়ে দাঁড়িয়ে কান্তা।
কান্তার হাত থেকে চায়ের কাপ নিয়ে খুশবন্ত জিজ্ঞেস করল,ওরা কখন বেরিয়েছে?
--আজ বাইর হয় নাই।বড়ি মেমসাবের তবিয়ত আচ্ছা নেহি।
আম্মীর শরীর খারাপ?জিজ্ঞেস করল,সাহেব একা বেরিয়েছে?
--সাহেব দাওয়া দরু করছে।
--দাওয়া দরু?খুশবন্তের কপালে ভাজ জিজ্ঞেস করে, তুমি কি করছিলে?
--আমি দেখছিলাম।
খুশবন্ত সোফা ছেড়ে উঠে দাড়ায়।রতি চিকিৎসা করছে?ও গড একী শুনছে?ঘর থেকে বেরিয়ে আম্মীর ঘরে গিয়ে চোখ কপালে ওঠার জোগাড়।রতি পিছন ফিরে বসে, কোলের উপর আম্মীর পা,পাঁচ আঙুলে মালাইচাকি ধরে নাড়ছে। চোখাচুখি হতে মুচকি হাসলেন দলজিৎ।পায়জামা নেই লুঙ্গি পরেছে উরু অবধি লুঙ্গি তোলা।মাথা ঝিম ঝিম করে উঠল।একটু হলেই চা চলকে পড়ছিল।খুশবন্ত নিজের ঘরে ফিরে এল।কান্তাও ঘরে ছিল,খুশবন্ত চায়ে চুমুক দেয়।
একটু পরে রতি ঢুকে জিজ্ঞেস করল,মুন্নি কখন এলে?
--তোমার ডাক্তারী বিদ্যে জানা আছে জানতাম না তো?
--আম্মীর খুব কষ্ট হচ্ছিল তোমার হলে বুঝতে।
--এটা কি তোমার কাজ?
রতি থতমত খায় পরে বুঝতে পেরে বলল,তুমি দশ পৃষ্ঠা বলেছিলে দাড়াও দেখাচ্ছি।
রত্নাকর নিজের লেখার ঘরে গিয়ে কাগজপত্র গোছাতে থাকে।খুশবন্ত দেখল আম্মী দরজায় এসে দাড়িয়েছে, লুঙ্গি বদলে পায়জামা পরেছেন।
--কেমন আছো?
--আভি থোড়া আরাম মেহশুস হচ্ছে।
--তোমার বহুৎ নাফা হল?
--মতলব?
--বেটা পেলে ডাক্তার ভি পেলে?
দলজিৎ খিল খিল করে হেসে উঠল।হাসি থামতে বলল,তোর বাপু বলত দলজিতে বেটার জন্য আফশোস কোরোনা।মুন্নি তোমার বেটা আছে আউর লেড়কি ভি আছে।আভি সচমুচ হামার বেটা ভি মিলে গেল।
খুশবন্ত চোখ তুলে আম্মীর দিকে তাকিয়ে থাকে,চোখে মুখে কি তৃপ্তি।
দলজিত বললেন, যাই ঘরের মধ্যে একটূ হাটি।দলজিৎ চলে গেলেন।
হন্তদন্ত হয়ে রতি ঢুকলো,হাতে একরাশ কাগজ।খুশবন্তের দিকে এগিয়ে দিয়ে বলল, দেখো নিজের চোখে দেখো।
খুশবন্ত কাগজগুলো নিয়ে চোখের সামনে মেলে ধরে।রত্নাকর বাধ্য ছাত্রের মত পাশে দাঁড়িয়ে দেখছে।খুশবন্ত পড়তে থাকে তিস্তা নামে একটি মেয়ে কলেজ যাবার পথে কিছু বকাটে ছেলে বিরক্ত করত।বাড়ীতে দারিদ্র্য বাইরে উপদ্রব সব কিছু উপেক্ষা করে লেখাপড়া চালিয়ে যায়।মনে স্বপ্ন একদিন কোনো প্রশাসনিক পদে পৌছে---।খুশবন্ত চোখ তুলে রতিকে দেখে জিজ্ঞেস করল,তিস্তা কে?
--কে আবার একটা সাধারণ ঘরের মেয়ে।
খুশবন্ত কাগজগুলো ফিরিয়ে দিয়ে বলল,রেখে এখানে এসো।
কান্তা এসে বলল,মেমসাব আপনাকে অফিসে ডাকছে।
--আচ্ছা।তুমি সাহেব আর আমাকে টিফিন দিয়ে যাও।
খুশবন্ত লুঙ্গি পরেই অফিসে ঢুকলো।সদানন্দ স্যালুট করে বলল,আমি আসি স্যার?
--হাসপাতালে খোজ নিয়ে ফোন করে জানাবেন সেণ্ট্রি কেমন আছে?মোহন জী আপনি বিশ্রাম করুন।সকালে দেখা হবে।
রতি ঘরে ঢুকে দেখল টেবিলের উপর একটা গাছে সুন্দর ফুল ফুটেছে।নাক এগিয়ে নিয়ে সুন্দর গন্ধ পেল।খুসবন্ত দরজায় এসে দাড়িয়েছে।রতি জিজ্ঞেস করে,কি ফুল সুন্দর গন্ধ?
--একটা নাম বলেছিল মনে নেই।অর্কিড--পরগাছা।ফুল সুন্দর কিন্তু অন্য গাছে ভর করে বেচে থাকে।
রত্নাকরের মুখটা করুণ হয়ে উঠল,চোখদুটো ছলছল করে।খুশবন্ত অবাক হয়,কাছে এসে জড়িয়ে ধরে চুমুতে চুমুতে অস্থির করে তোলে।কাদছো কেন?
রত্নাকর হাসল চোখ মুছে বলল,আমিও একটা পরগাছা।
খুশবন্ত বুঝতে পেরে জড়িয়ে ধরে বলল,ইউ আর মাই পার্ট--আমার অংশ।তুমি-আমি কি আলাদা?ফুল ফোটাবার জন্য আমি জনম জনম তোমাকে ধরে রাখবো জান।
কান্তা ঢুকতেই রতিকে ছেড়ে দিল।কান্তা দুটো প্লেট নামিয়ে দ্রুত ঘর থেকে বেরিয়ে গেল।
কদিন আগে উমানাথ এসেছে শুভর সঙ্গে দেখা হয়নি।একজন বলল ম্যালে যান ওখানে দেখা হতে পারে।উশ্রীর বায়নায় একদিন টাইগার হিল গেছিল কিন্তু সূর্যাস্ত দেখা হয়নি।ম্যালে অনেকক্ষন অপেক্ষা করেও শুভ্র দেখা পায়নি।ওরা অন্য কোথাও চলে যায়নি তো?
উশ্রী বিরক্ত হয়ে বলল,তুমি কি দার্জিলিং-এ শুভকে দেখতে এসেছো?জিওলজিক্যাল পার্ক বোটানিক্যাল গার্ডেন কিছুই দেখা হয়নি।
ওর সঙ্গে কথায় পারেনা উমানাথ।সব ঘুরে ঘুরে দেখতে চায়।কিন্তু কাল সকালে এসপির বাংলোয় যাবো বলতে খুব উৎসাহ।
শোবার সময় খাটে উঠতে গিয়ে খুশবন্ত কোমর চেপে ল্যাংচাতে থাকে।কোমরে আবার কি হল রত্নাকর ভাবে।এতক্ষন তো ভালই ছিল জিজ্ঞেস করল,তোমার কোমরে কি হয়েছে মুন্নি?
--কিছু না।
ধ্বন্দ্বে পড়ে যায় রতি।খুশবন্ত উপুড় হয়ে শুয়ে থাকে।রত্নাকর লুঙ্গি নামিয়ে কোমরে ম্যাসাজ করতে লাগল।বালিশে মুখ গুজে খুশী মিট্মিট করে হাসে।রতি জিজ্ঞেস করে, ভাল লাগছে?
--আরেকটু নীচে করো।
রত্নাকর বুঝতে পারে ,লুঙ্গি আরো নামিয়ে পাছার বল দুটো টিপতে টিপতে থাকে। দু পায়ের ফাকে হাত ঢুকিয়ে যোনীতে হাত বোলায়।কোমর নড়ে উঠল।
খুশবন্তের মধ্যে একটা পুরুষালী ভাব লক্ষ্য করতো।কোথাও গোলমাল হলে এগিয়ে যেতো।একবার ডায়মণ্ড হারবারে পিকনিকে কয়েকটি ছেলে আমাদের দলের মেয়েদের টিটকিরি করায় খুসবন্ত যেভাবে তাদের শায়েস্তা করেছিল ভাবলে এখনো হাসি পায়।সেই খুশবন্তের মধ্যে যে এরকম একটা নারীসত্তা লুকিয়েছিল ভেবে অবাক হয় রতি।আম্মীকে ম্যাসাজ করেছে বলে কৌশল করে তাকে দিয়ে ম্যাসাজ করাচ্ছে।সত্যিই নারীর কত রূপ।
-- মুখে বললেই হত,কৌশল করার দরকার ছিল না। আমার চিন্তা হয়না বুঝি?রতি বলল।
খুশবন্ত পালটি খেয়ে হাসে। বলল,আমার শরম করেনা?
রতি লক্ষ্য করল যোনীর দুপাশে কিছু পশম রেখে সুন্দর করে সেভ করেছে। নীচু হয়ে পেটে চাপ দিতে আতকে উঠে বলল খুশী,পেটে চাপ দিও না।বুকে করো।
বিস্ময়ের সীমা থাকেনা যেন পেটে এখনই বাচ্চা এসে গেছে।রতি স্তনে মোচড়াতে লাগল।নাক কুচকে চোখ বুজে উপভোগ করে।স্তনের বোটায় মোচড় দিতে কাধ উঠে গেল।
--করলে করো।ছমাসে টাচ করতে দেবোনা।আগের মত ভয় পায়না খুশবন্ত।নিতে নিতে সয়ে গেছে।
রতি দুই হাটুর কাছে হাটুতে ভরদিয়ে বসে খুশী হাটু ভাজ করে দুহাত দিয়ে ধরে থাকে। হঠাৎ উপুড় হয়ে হাটু মুড়ে শুয়ে বলল,পিছন দিক থেকে করো,এটা সেভ।
দুই উরুর ফাক দিয়ে উকি দিচ্ছে যোনী।রতি বলল,মানে?
--পেটে চাপ পড়বে না।
রতি উপলব্ধি করে এক অঙ্গে দুই রূপ--পত্নীসত্তা এবং মাতৃসত্তা।পিছন থেকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে যোনীতে লিঙ্গ স্থাপন করে চাপ দিতে ঢুকে গেল।যতদুর সম্ভব সাবধানে ঠাপ শুরু করল।কনুইয়ে ভর দিয়ে মুন্নি পাছা উচু করে আছে।রাতের নিস্তব্ধতা ভেদ করে ফুচুক-ফুচুক শব্দ হয়।খুশীও পাছা নাড়তে নাড়তে বলল,তোমার বেশী টাইম লাগে।জোরে করো।
রতি মিনিট কুড়ি পর বীর্যপাত করল।
উশ্রী লক্ষ্য করেছে উমা বেশি কায়দা কানুন জানে না।কতরকম চোদনের কথা শুনেছে।কিন্তু ওর একই কায়দা পাছার কাছে বসে,দু কাধ ধরে।মাই টিপতে পারে কিস করতে পারে।মেয়ে হয়ে কি করে।এসব বলে?পাঁচ-সাত মিনিট পর বেরিয়ে যায়।কোনো কোনো দিন তার বেরোয় না।
অফিস এসপির বাংলো লাগোয়া,পিছনের দরজা দিয়ে বাংলো যাবার পথ।সকাল বেলা চা টিফিন খেয়ে খুশবন্ত পোশাক পরেই অফিসে আসে।খাতা পত্তর দেখে রাউণ্ডে বের হবে।
ফোন করে খবর নিল হাসপাতালে আহত কনস্টেবল কেমন আছে।রাউণ্ডে বেরিয়ে একবার দেখতে যাবে।টেবিলে চাপা দেওয়া স্লিপে চোখ বোলায়,উমানাথ ঘোষ।চেয়ার থেকে উঠে বাইরে বেরিয়ে এল।উমানাথ উঠে দাড়ালো।উশ্রী এই প্রথম খুশবন্তকে পুলিশী পোশাকে দেখল।দারুন লাগছে দেখতে।খুশবন্ত জিজ্ঞেস করে,কতক্ষন?এটা অফিস,বাংলোয় যাবে তো।
--বেশিক্ষন না।
--এসো ভিতরে এসো।এই দরজা দিয়ে চলে যাও।রতিকে ডাকবে।আমি আসছি।
উমানাথ ভিতরে গিয়ে ইতস্তত করে,একজন মহিলা এসে জিজ্ঞেস করল,কুছু বলবেন?
উমানাথ বলল,রতি আছে?
পিছন থেকে ততক্ষনে দলজিৎ এসে কিছুক্ষন দেখে জিজ্ঞেস করেন,উমা আছে না?
উমানাথ চিনতে পারে বলল,হ্যা আণ্টি আমি।
দলজিৎ গলা চড়িয়ে ডাকলেন,পুত্তর তোমার দোস্ত এসেছে।
রতি লিখছিল,আম্মীর গলা পেয়ে বেরিয়ে এসে বলল,আরে উমাদা?এসো ভিতরে এসো।
উশ্রী স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে।দুজনকে ভিতরে নিয়ে বসালো।জিজ্ঞেস করল,মুন্নি মানে খুশী জানে তোমরা এসেছো?আম্মী আপনি উমাদাকে চেনেন না?
--আণ্টী তো তোকে ডাকলেন।উমানাথ বলল।
--কান্তা একটু চা বানাও।কেমন আছেন বৌদি?
--ভাল আছি। আপনি স্থির হয়ে বসুন।উশ্রী বলল।
ইতিমধ্যে খুশবন্ত এসে পড়ে।একটা চেয়ারে বসে জিজ্ঞেস করল,কবে এসেছো?
--দিন পাঁচেক হয়ে গেল।
--কদিন আছো তো?ছোটা জিলা তোমাকে সব ঘুরে দেখাবো।
--ছুটি শেষ,কাল সন্ধ্যেবেলার ট্রেনে ফিরব।
--তাহলে আজ এখানে খাবে।
উমানাথ উশ্রীর দিকে তাকায়,উশ্রী বলল,অবশ্যই এসপির আমন্ত্রন বলে কথা।
--তোমরা গল্প করো,এসপি একটা রাউণ্ড দিয়ে আসছে।
--খুশবন্ত তুমি কেমন আছো?
রতির দিকে তাকিয়ে বিষন্ন গলায় বলল,ভাল না,বিয়ে করে খুব অশান্তিতে আছি।
উশ্রী আড়চোখে রতিকে দেখে,এমনভাব করে বসে আছে যেন এসবের সঙ্গে তার কোন সম্পর্ক নেই।উমানাথ উশ্রী দুজনেই ধ্বন্দ্বে পড়ে যায়।
রতিকে ডেকে অন্য ঘরে নিয়ে গেল খুশবন্ত।মাথা ধরে চুমু খেয়ে বলল,দেখো ওদের যত্নে যেন ত্রূটি না হয়,শেষে পাড়ায় গিয়ে বদনাম করবে।ফিরে এসে বলল,আসি উমানাথ,আসি ম্যাডাম।
উমানাথ শুভ সোমলতা বঙ্কা সবার কথা একে একে বলে।চ্যারিটির সভা সেখানে ড ব্যানার্জী কি বলছেন--সব কথা।সুরঞ্জনা মুখার্জির মৃত্যুর কথাও বলতে ভোলে না।রতি চুপ করে শুনে যায়।রঞ্জনা আণ্টী বেচে নেই।নিশ্চয়ই পলি মলিরা এসেছিল।বঙ্কা এখন কম্পাউণ্ডারি করছে বাড়ি ছেড়ে বস্তিতে ভাড়া থাকে শুনে ব্যথিত হয়।
--আচ্ছা উমাদা বঙ্কা তো ওষূধের নামটাম এখন শিখেছে।একটা ওষূধের দোকান করতে পারেনা?
--ওষুধের দোকান করতে কম করে লাখ খানেক টাকার ধাক্কা।
রতি নীরবে কি যেন ভাবে।
--বেড়াতে এসে এইসব কথা বলে ঠাকুর-পোর মন খারাপ করে দিলে।উশ্রী বলল।
রত্নাকর উশ্রীর দিকে তাকিয়ে হাসল।কান্তা চা সঙ্গে স্যাণ্ড উইচ নিয়ে ঢুকে বলল, সাহেব আপনাকে শুধু চা দিলাম।
রত্নাকর উঠে দাঁড়িয়ে বলল,তোমরা চা খাও,আমি এখুনি আসছি।
রতি চলে যাবার পর উশ্রী বলল,হোটেলে খেয়ে তৃপ্তি হত না।ভালই হল কি বলো?
বউয়ের কথা উমানাথের কানে ঢোকেনা।সে খুশবন্তের কথা ভাবছে।বিয়ে করে খুব অশান্তিতে আছি তাও আবার বলল রতির সামনে?
রত্নাকর এক কপি "যে কথা বলা হয়নি" নিয়ে ঢুকল।সোফায় বসে মলাট খুলে লিখল, যার সঙ্গে কথা বলতে ভাল লাগে সেই মনীষা বৌদিকে--রতি।বইটা উমাদাকে দিয়ে বলল,বৌদিকে দিও।
উমানাথের হাত থেকে বইটা নিয়ে উশ্রী কি লিখেছে দেখল,হেসে বলল,আর কাউকে দেবেন না?
--সবই যদি বিলি করে দিই তাহলে আমার চলবে কি করে?
--শোন রতি একটু এ্যাডজাস্ট করে চলতে শেখ।গম্ভীরভাবে বলল উমাদা।
-মানে?তারপর হেসে বলল,তুমি মুন্নির কথা বলছ?ঐ পাগলের কথা আমি ধরি না।ও হল তিস্তা নদীর মত খেয়ালী। তুমি তো জানো কেমন ডাকাবুকো? যতক্ষন বাইরে থাকে খুব দুশ্চিন্তা হয়,বাসায় না ফেরা অবধি শান্তি পাইনা।
--বউকে আপনি মুন্নি বলেন?উশ্রী জিজ্ঞেস করল।
--ওর ডাক নাম মুন্নি,ওর মা ওকে এইনামে ডাকে।উমাদা তুমি ঠিকানাটা লিখে দিও।আমি পঞ্চাশ হাজার টাকা পাঠাবো,বাকীটা ম্যানেজ করে বঙ্কাকে একটা দোকান করে দিও।
--সে না হয় ব্যাঙ্ক লোন-টোন করে ম্যানেজ করা যাবে।তুই পঞ্চাশ হাজার দিবি?
--কেন দেবোনা বল?দুরবস্থা কাকে বলে জীবন দিয়ে শিখেছি।মুন্নি না থাকলে আমার যে কি অবস্থা হত।
উশ্রীর সব তালগোল পাকিয়ে যায়।এদের স্বামী-স্ত্রী সম্পর্কটা কিছুতেই বুঝতে পারে না।
আত্মীয় স্বজন নয় একজন বন্ধুর জন্য এককথায় এতগুলো টাকা?উপলব্ধি করে রতি আর পাচজনের থেকে স্বতন্ত্র।মেয়ে মহলে কেন তাকে নিয়ে এত কৌতুহল?উশ্রী জিজ্ঞেস করে,পারমিতার বিয়ে ঠিক হয়েছে জানো?
--তাই?কোথায় বিয়ে হচ্ছে?
--বোম্বে থাকে ছেলে।
রত্নাকর উদাস দৃষ্টি মেলে কি যেন ভাবে।উশ্রী ভাবে পারমিতার বিয়ে শুনে হয়তো রতির মন খারাপ।
--জানো বৌদি মেয়েদের আমি কেন এত শ্রদ্ধা করি?পারু বোম্বে চলে যাবে।বাবা-মাকে ছেড়ে নতুন পরিবেশ স্বামী শ্বাশুড়ি ননদ দেওর সব আলাদা আলাদা মেজাজ সবার সঙ্গে ঠিক মানিয়ে নেবে।শিক্ষার উদ্দেশ্য বইতে পড়েছি এ্যাডজাস্টমেণ্ট বাংলায় বলে সঙ্গতি সাধন।মেয়েরা এই শিক্ষা নিয়ে জন্মায়।অথচ সংসারে তারা কোনো দাম পেল না।সব চেয়ে বড়কথা সে জন্য তাদের কোন অভিযোগ বা অভিমান নেই,এটাই তাদের মহত্ব।
রতির চোখের পাতা ভিজে যায়,চোখ মুছে লাজুক হেসে বলল,উমাদা জানে আমার কথায় কথায় চোখে জল এসে যায়।
খুশবন্ত ঢুকে বলল,অনেক দেরী হয়ে গেল।কান্তা--।
দলজিৎ এসে বললেন,কান্তা স্নানে গেছে।
--রান্না কতদুর?
--হয়ে গেছে,আমিই করেছি।দলজিৎ বললেন।
ওরা স্নান করেই বেরিয়েছিল।রতি স্নানে গেল।কান্তা টেবিল গোচ্ছাছে।উমানাথ উশ্রী টেবিলে বসে দলজিতের সঙ্গে কথা বলছে।স্বামীর কথা বলতে বলতে দলজিতের চোখে জল এসে গেল।রতি বাথ্রুম থেকে বের হল।উমা জিজ্ঞেস করে,আণ্টি আপনার জামাই কেমন হল?
দলজিৎ উঠে রতিকে বুকে চেপে ধরে বলল,আমার বেটা মানি আছে মানি।
খুশবন্ত বিরক্ত হয়।আদর করে নাম দিয়েছে মানি।মানি আগে কি করেছে জানে না তো।চেয়ার টেনে বসে বলল,আম্মী ভুখ লেগেছে।
রতিকে ছেড়ে দিতে ঘরে গিয়ে নিজেকে প্রস্তুত করে।মুন্নির আচরণ রতির নজর এড়ায় নি।আম্মীকে নিয়ে মুন্নির মনোভাব রোগে না দাঁড়িয়ে যায়।
--মানিকে মতলব কি জানো?শিউজী আছে।দলজিৎ আপন উচ্ছ্বাসে বললেন।
কান্তা চারটে প্লেট দিয়ে গেল।রতি এসে মুন্নির পাশে বসল।তরকারি মিশ্রিত ভাত দেখে উশ্রী জিজ্ঞেস করে,এটা কি?
রতি বলল,আলু গোবি পোলাও।আম্মী বানিয়েছে খেয়ে দেখুন।রতি বলল।
খেতে খেতে আরেকবার বঙ্কার কথা বলল,উমানাথ।খুসবন্ত বিস্ময় প্রকাশ করে।বঙ্কার এই আচরণ প্রত্যাশিত নয়।রতি বলল,অবস্থা পরিবেশ মানুষকে চালিত করে।খুশবন্ত আড়চোখে দেখল রতিকে।উমানাথ বলল,দোকান করার জন্য রতি টাকা দেবে।খুশবন্ত বলল,ও টাকা কোথায় পাবে?
উমানাথ রতির দিকে তাকালো।রতি মাথা নীচু করে খেয়ে যাচ্ছে।প্রতিটি পদ খুব তৃপ্তি করে খেলো ওরা।কথা হল কাল সন্ধ্যেবেলা খুশবন্ত স্টেশনে পৌছে দেবে।উমানাথ মৃদু আপত্তি করল।
পরের দিন সন্ধ্যেবেলা জিপে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে পৌছে দিল।মালপত্তর তুলে উমানাথ প্লাটফর্মে দাঁড়িয়ে কথা বলছে।নিজের জায়গায় বসে উশ্রী জানলা দিয়ে মুখ বাড়িয়ে রতির সঙ্গে কথা বলছে।খুশবন্ত মাঝে মাঝে আড়চোখে দেখে।ট্রেনের হুইশল বাজতে উমানাথ ট্রেনে উঠে পড়ল।খুশবন্ত পকেট থেকে একটা খাম বের করে উমার হাতে দিল।ট্রেন ছেড়ে দিল।প্লাটফর্মে দাঁড়িয়ে হাত নাড়ে।
জায়গায় বসে উমানাথ খামটা খুলল,পঞ্চাশ হাজারের চেক তার নামে।সঙ্গে একটা চিরকুট।চিরকুট খুলে চোখের সামনে মেলে ধরল।" উমানাথ,রতি ছিল না ভাল ছিলাম কোনো চিন্তা ছিলনা।বিয়ের পর চিন্তা পয়দা হল,এই বুঝি হারিয়ে গেল? কলকাত্তা গেলে দেখা হবে।খুশবন্ত সোম কাউর।"



[সমাপ্ত]

Post Reply